ট্রেন দুর্ঘটনা: নিহত সন্তানের জন্য মায়ের আহাজারি



‘মেয়েটা আমার কোলেই ছিল। হঠাৎ যখন জোরে শব্দ পাই, তখন মেয়েটাকে আরও জোরে জড়িয়ে ধরি। কিন্তু মেয়েটাকে বাঁচাতে পারলাম না। মেয়েরে দাফন করা হয়েছে, কিন্তু দেখতে পারিনি,’ দুই বছর বয়সী মেয়ে সোহাকে হারিয়ে এভাবেই হাসপাতালের বেডে শুয়ে আহাজারি করছিলেন নাজমা আক্তার। কসবার ট্রেন দুর্ঘটনায় নাজমার মেয়ে নিহত হয়েছে। এই দুর্ঘটনায় আরও আহত হয়েছেন নাজমা আক্তারের স্বামী মহিন আহমেদ সোহেল ও চার বছর বয়সী ছেলে নাফিজুল হক নাফিজ। তারা বর্তমানে পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়া নাজমার খালা রেনুও (৪৫) আহত হয়েছেন।

উল্লেখ্য,  ঢাকা-চট্টগ্রাম ও ঢাকা-সিলেট রেলপথের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার মন্দবাগ রেলস্টেশনে মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) ভোররাতে আন্তনগর তূর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেসের সংঘর্ষে ১৬জন নিহত ও শতাধিক আহত হয়েছেন।
Powered by Blogger.